logo
Your professional website

video

https://vimeo.com/user86587686

facebook

Connect your social networks to share all your public publications and latest news.
My Adfeedz Portfolio of rashid01712My Adfeedz Portfolio of rashid01712
Long time ago
ভালোবাসার নগরে বাড়ি ভাড়ার যন্ত্রণা
ভালোবাসার নগরে বাড়ি ভাড়ার যন্ত্রণা
ভালোবাসার নগরে বাড়ি ভাড়ার যন্ত্রণা
নিউইয়র্ক নগরে বাসা ভাড়া ক্রমশ লাগামহীন হয়ে উঠেছে। কেবল বাসা ভাড়ার ব্যয় সামাল দিনে না পেরে অভিবাসীদের অনেকেই ছেড়ে যাচ্ছেন  ভালোবাসার এই নগর। প্রমাণিত ভালো আয় না দেখাতে পারলে বাসা ভাড়া পাওয়া যায় না। ফলে নগদ অর্থ নিয়ে আসা অভিবাসীদের থাকতে একটি

বাসার জন্য হন্যে হয়ে ঘুরতে হচ্ছে। নগদ মজুরি নিয়ে যারা কাজ করেন, তাদেরও একই সমস্যা।
নিউইয়র্ক শহর ‘দ্য সিটি অফ ড্রিমস’ নামে পরিচিত হলেও ঘরবাড়ি সংক্রান্ত ব্যয় অনেকের জীবন দুর্বিষহ করে তুলেছে। নিউইয়র্কে ঘরবাড়ির ভাড়া ও উচ্চদাম নতুন কিছু নয়। আমেরিকার অন্যান্য বড় শহরের সঙ্গে তুলনা করলে নিউইয়র্কে বাড়িভাড়া সব সময়ই বেশি ছিল। কিন্তু দিন যত যাচ্ছে, এই  ব্যয় মানুষের হাতের নাগালের বাইরে চলে যাচ্ছে। নতুন আসা অভিবাসীরা নিউইয়র্কে ঘর কেনার কল্পনাও করতে পারছেন না। আর কিনলেও মাসিক
আয়ের প্রায় পুরোটাই চলে যায় ঘরের মর্টগেজ দিত। এ জন্য অভিবাসীরা এমন সব শহরে চলে যাচ্ছেন বা স্থানান্তরের পরিকল্পনা করছেন, যেখানে  বাড়িভাড়া হাতের নাগালে। এক প্রতিবেদনের তথ্য অনুযায়ী, প্রতিদিন নিউইয়র্ক শহর থেকে প্রায় ২৭৭ জন নাগরিক অন্যত্র স্থানান্তরিত হচ্ছেন। আমেরিকার অন্য যেকোনো শহর থেকে স্থানান্তরের ক্ষেত্রে এ সংখ্যা বেশি। এরপরে রয়েছে লস অ্যাঞ্জেলস ও শিকাগো। ২০১৭ সালের জুলাই থেকে ২০১৮ সালের জুন পর্যন্ত নিউইয়র্ক শহর থেকে প্রায় ৪৮ হাজার ৫০০ মার্কিন অন্যান্য শহরে বা অঙ্গরাজ্যে চলে গেছেন। কি হারে এই দাম বাড়ছে? রিয়েল এস্টেট লিস্টিং সাইট জাম্পারে প্রকাশিত এক তথ্যমতে, এক বেডরুমের একটি ফ্ল্যাটের গড় ভাড়ার দিক দিয়ে সানফ্রান্সিসকোর পরেই নিউইয়র্কের অবস্থান। এক বেডরুম ঘরের ভাড়া প্রায় ৪.৬ শতাংশ এবং দুই বেডরুম ঘরের ভাড়া প্রায় ৫.১ শতাংশ হারে বাড়ে। ২০১৯ সালের মার্চে অ্যাপার্টমেন্ট লিস্ট থেকে প্রকাশিত এক তথ্যমতে, নিউইয়র্কে দুই বেডরুমের বাসার গড় ভাড়া ২ হাজার ৪৯৯ ডলার এবং এক বেডরুমের বাসার ভাড়া ২ হাজার ৯৮ ডলার। শুধু আমেরিকায় নয়, বিশ্বের অন্যান্য অনেক বড় শহরের সঙ্গে তুলনা করলেও এই ভাড়া অনেক

বেশি। আমেরিকার অন্যান্য বড় শহর যেমন ফিলাডেলফিয়া, বোস্টন, লস অ্যাঞ্জেলসের বাসাভাড়া নিউইয়র্ক থেকে তুলনামূলক কম। প্রকাশিত তথ্যমতে, ফিলাডেলফিয়ায় দুই বেডরুমের বাসার গড় ভাড়া ১ হাজার ১৬৯ ডলার, এক বেডরুমের ভাড়া ৯৬৮ ডলার। বোস্টনে দুই বেডরুমের বাসার ভাড়া

২ হাজার ১০৩ ডলার, এক বেডরুমের ভাড়া ১ হাজার ৬৯৬ ডলার। লস অ্যাঞ্জেলেসে দুই বেডরুম বাসার ভাড়া ১ হাজার ৭৫২ ডলার, এক

বেডরুমের ভাড়া ১ হাজার ৩৬৪ ডলার। বাসা ভাড়ার পেছনে এত টাকা ব্যয় করেও অনেককে আলো-বাতাসহীন বেসমেন্টে থাকতে হয়, যেখানে সূর্যের আলো পৌঁছায় না বললেই চলে। ওজোন পার্কের বাসিন্দা মারুফ আহমেদ বলেন, দীর্ঘদিন থেকেই তিনি দুই সন্তান ও স্ত্রী নিয়ে বেসমেন্টে এক বেডরুমের ঘরে থাকেন। কারণ বেসমেন্টে ভাড়া কিছুটা কমে পাওয়া যায়। সন্তানদের লিভিং রুমের বেসমেন্টে ঘুমাতে হয়।
ওজোন পার্কের আরেক বাসিন্দা রেহানা বলেন, তিনিও দীর্ঘদিন ধরেই স্বামীর সঙ্গে বেসমেন্টে এক বেডরুমের ঘরে থাকেন। সমস্যা হল, বেডরুম ও রান্নাঘর একই সঙ্গে হওয়ায় রান্নার পর গন্ধ থেকে যায়, যার ফলে সমস্যা হয়। জানালা না থাকায় গন্ধ বের হয়ে যাওয়ার কোনো উপায় নেই।

কথা হয় জ্যামাইকার বাসিন্দা ওমর ফারুকের সঙ্গে। তিনি বললেন, ইতিমধ্যেই তিনি বাফেলোতে বাড়ি কিনে রেখেছেন। শিগগিরই পরিবার নিয়ে সেখানে স্থানান্তরিত হবেন। তিনি বলেন, নিউইয়র্কে এত দিন বাড়ি ভাড়ার পেছনে যে অর্থ খরচ করেছেন, তা দিয়ে এত দিনে বাফেলোতে দুই-তিনটি বাড়ির মালিক হয়ে যেতে পারতেন।
নিউইয়র্কে দিন দিন বাড়ি ভাড়া যে হারে বাড়ছে, তাতে অনেক বাংলাদেশি অভিবাসীকে বাংলাদেশ থেকে আসার আগেই প্রথমে এমন সব শহরে স্থানান্তর হওয়ার পরিকল্পনা করতে হবে, যেখানে বাড়িভাড়া হাতের নাগালে আছে।
Long time ago
লাল-সবুজের পতাকার পেছনের গল্প জানালেন মুশফিক
লাল-সবুজের পতাকার পেছনের গল্প জানালেন মুশফিক
যথাযোগ্য মর্যাদা ও নানা কর্মসূচির মধ্য দিয়ে মাদারীপুরে উদযাপিত হচ্ছে মহান বিজয় দিবস। বঙ্গবন্ধু বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগ (বিপিএল) নিয়ে ব্যস্ত সময় পার করছেন মুশফিক-তামিম-মাশরাফি-মাহমুদউল্লাহরা। এরই মধ্যে বাংলাদেশের ক্রিকেটের এই তারকারা যে যার অবস্থানে থেকে মহান বিজয় দিবসের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে দেশবাসীকে শুভেচ্ছা জানাতে গিয়ে মুশফিক জানিয়েছেন, বাংলাদেশের লাল-সবুজ পতাকার পিছনের গল্প। মুশফিক নিজের ভেরিফাইড ফেসবুক পেজে একটি পতাকার ছবি দিয়ে ক্যাপশনে লিখেছেন, ‘সবাইকে বিজয় দিবসের শুভেচ্ছা। আমরা অনেকেই আমাদের নিজেদের লাল এবং সবুজ পতাকার পিছনের গল্প জানি না এবং আমি এই বছরের বিজয় দিবসে সেটা শেয়ার করতে চাই। লাল বৃত্তটা বাম দিকে সামান্য সরিয়ে রাখা হয়েছে যাতে উড়ার সময় এটিকে মাঝামাঝি দেখা যায়। এটি বাংলার উদীয়মান সূর্য এবং ১৯৭১ সালের বীর সন্তানদের প্রতীকী বার্তা বহন করে। সবুজ রঙ দিয়ে বোঝানো হয়েছে বাংলাদেশের সবুজ-শ্যামল ভূমির কথা।’ মুশফিক আরও লিখেছেন, ‘আজ আমরা এই পতাকা অনেক গর্বের সাথে ধরে রেখেছি। ১৬ ডিসেম্বর- বিজয় দিবস, যা আমাদের জন্য অনেক জয়ের দরজা খুলে দিয়েছে। স্যালুট মুক্তিযোদ্ধাদের, আপনাদের কখনও ভোলা যাবে না।’
Long time ago

Daisy Ridley photographed by Matthew Sprout for PORTER Magazine.

Long time ago
চাঁপাইনবাবগঞ্জে জেএসসি-জিডিসি পরীক্ষা শুরু

চাঁপাইনবাবগঞ্জে জেএসসি-জিডিসি পরীক্ষা শুরু

https://www.cpagrip.com/show.php?l=0&u=246074&id=27456

রাজশাহী শিক্ষা বোর্ড ও মাদরাসা শিক্ষা বোর্ডের অধীনে চাঁপাইনবাবগঞ্জে শনিবার ২০১৯ সালের জেএসসি, জিডিসি এবং এসএসসি (ভোকেশনাল) ও দাখিল (ভোকেশনাল) নবম শ্রেণির সমাপনী পরীক্ষা শুরু হয়েছে। এবার চলতি পরীক্ষায় জেলার ৫টি উপজেলার ৩০টি কেন্দ্রে মোট ২৭ হাজার ৫’শ ০২ জন পরীক্ষার্থী অংশ নিচ্ছে। জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের শিক্ষা শাখা সূত্রে জানা গেছে, এ বছর জেলার ৫টি উপজেলার ২’শ ৫৩টি মাধ্যমিক বিদ্যালয়, ১’শ ৫৭ টি জুনিয়র দাখিল ও ৭টি দাখিল (ভোকেশনাল) এ ২০ হাজার ৮’শ ২৭ জন, ৪ হাজার ৮’শ ০৭ জন ও ১ হাজার ৮’শ ৬৮ জন শিক্ষার্থী পরীক্ষায় অংশ নিচ্ছে। জেলার পরীক্ষার্থীদের মধ্যে সদর উপজেলায় জুনিয়র স্কুলে ৬ হাজার ১’শ ৫৬ জন, জুনিয়র দাখিলে ১ হাজার ৪’শ ৫১ জন এবং এসএসসি (ভোকেশনাল) ও দাখিল (ভোকেশনাল) নবম শ্রেণিতে ৭’শ ৮৭ জন, শিবগঞ্জে জুনিয়র স্কুলে ৭ হাজার ৪’শ ০১, জুনিয়র দাখিলে ১ হাজার ৮’শ ৪৭ এবং এসএসসি  ভোকেশনাল) ও দাখিল (ভোকেশনাল) নবম শ্রেণিতে ৩’শ ৪০ জন, গোমস্তাপুরে জুনিয়র স্কুলে ৩ হাজার ৭’শ ০৮ জন, জুনিয়র দাখিলে ৭’শ ৫৯ জন এবং এসএসসি (ভোকেশনাল) ও দাখিল (ভোকেশনাল) নবম শ্রেণিতে ৩’শ ৩৮ জন, নাচোলে জুনিয়র স্কুলে ১ হাজার ৯’শ ৮৩, জুনিয়র দাখিলে ৩’শ ৯১ জন এবং এসএসসি (ভোকেশনাল) ও দাখিল (ভোকেশনাল) নবম শ্রেণিতে ১’শ ৪৭ জন ও ভোলাহাটে জুনিয়র স্কুলে ১ হাজার ৫’শ ৩৮ জন, জুনিয়র দাখিলে ৩’শ ৪৯ জন এবং এসএসসি (ভোকেশনাল) ও দাখিল (ভোকেশনাল) নবম শ্রেণিতে ২’শ ৫৬ জন পরীক্ষার্থী সমাপনী পরীক্ষায় অংশ নিচ্ছে। জেলা শিক্ষা অফিসার মো. আবদুল লতিব জানান, আগামী ১১ নভেম্বর পর্যন্ত পরীক্ষা চলবে। তিনি আরো জানান, বিশেষ চাহিদা সম্পন্ন পরীক্ষার্থীদের জন্য অতিরিক্ত ৩০ মিনিট সময় বেশি রাখা হয়েছে।
Long time ago
1Long time ago
Long time ago
picture
picture











Long time ago

i love that stage of being tipsy where youre completely coherent and know exactly whats going on but you feel so loose and free at the same time and your typing skills blow but you can feel the blood flowing throughout your entire body and its just warm and fuzzy and nice and amazing

Long time ago
Long time ago
আরও দুটি বোয়িং কেনার ইঙ্গিত প্রধানমন্ত্রীর
https://www.cpagrip.com/show.php?l=0&u=246074&id=26689
আরও দুটি বোয়িং কেনার ইঙ্গিত প্রধানমন্ত্রীর চতুর্থ ড্রিমলাইনার রাজহংসের বিমানে যুক্ত হওয়া উপলক্ষে আয়োজিত অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ভিভিআইপি টার্মিনাল, হজরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর, ১৭ সেপ্টেম্বর। ছবি: বাসস
বাংলাদেশ এয়ারলাইনসের জন্য আরও দুটি বোয়িং কেনার ইঙ্গিত দিয়েছেন। তিনি জাতীয় পতাকাবাহী সংস্থাটির কর্মকর্তা-কর্মচারীদের সততা ও আন্তরিকতার সঙ্গে কাজ করে যাত্রীসেবার মান বাড়ানোর আহ্বান জানিয়েছেন।আজ মঙ্গলবার বিকেলে হজরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের ভিভিআইপি টার্মিনালে বিমানের বহরে চতুর্থ ড্রিমলাইনার ‘রাজহংস’–এর যুক্ত হওয়া উপলক্ষে আয়োজিত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির ভাষণে এসব কথা বলেন শেখ হাসিনা। প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘যে বিমানগুলো রয়েছে, সেগুলো ছাড়াও বিমানের বহরে আরও তিনটি ড্যাশ বোম্বাডিয়ার বিমান যোগ হবে। আমরা আরও একটি খবর পেয়েছি যে বোয়িং শিগগিরই তাদের আরও দুটি বিমান বিক্রয় করবে, তা কেউ অর্ডার দিয়ে নেয়নি। সুযোগটা আমরা নেব।’ এ প্রসঙ্গে প্রধানমন্ত্রী বলেন, দেশের রিজার্ভের পরিমাণ ভালো রয়েছে। কাজেই নিজস্ব অর্থে আরও দুটি উড়োজাহাজ ক্রয় করলে সমস্যা হবে না। তিনি যাত্রীসেবা বাড়ানোর মাধ্যমে বাংলাদেশের ভৌগোলিক অবস্থানকে কাজে লাগিয়ে যাত্রী পরিবহন বৃদ্ধিতেও বিমান–সংশ্লিষ্টদের মনোনিবেশ করার নির্দেশ দেন। প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘সব সময় আমরা রিজার্ভ হিসাব করি এ কারণেই, কেননা কোনো প্রাকৃতিক দুর্যোগ-দুর্বিপাক দেখা দিলে আমাদের যদি খাদ্য কিনতে হয়, তাহলে যেন তিন মাসের খাদ্য আমরা কিনতে পারি, সে পরিমাণ অর্থ জমা থাকতে হবে। এর অতিরিক্ত অর্থ রেখে দেওয়ার কোনো প্রয়োজন নেই। সেটা আমরা উন্নয়নের কাজে লাগাতে পারি।’ তিনি আরও বলেন, ‘ইতিমধ্যেই খাদ্য উৎপাদনে আমরা স্বয়ং সম্পূর্ণতা অর্জন করেছি। কাজেই খুব যে আমরা বিপদে পড়ব তা নয়। প্রাকৃতিক দুর্যোগ মোকাবিলার জন্য যে পরিমাণ মজুতের দরকার, তা আমরা মজুত রাখছি।’ বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন প্রতিমন্ত্রী মাহবুব আলী, বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রণালয়ের সচিব মহিবুল হক, বিমান পরিচালনা পর্ষদের চেয়ারম্যান এয়ার মার্শাল (অব.) মুহাম্মাদ এনামুল বারী অনুষ্ঠানে বক্তব্য দেন। বিমানের ব্যবস্থাপনা পরিচালক এবং সিইও মোকাব্বির হোসেইন স্বাগত বক্তব্য দেন। বাংলাদেশে যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রদূত আর্ল আর মিলার অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন। এর আগে প্রধানমন্ত্রী টারমার্কে ফিতা কেটে বিমানবহরের চতুর্থ ড্রিমলাইনার রাজহংসের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেন। পরে প্রধানমন্ত্রী উড়োজাহাজে উঠে এটি ঘুরে দেখেন এবং পাইলট ও ক্রুদের সঙ্গে কথা বলেন। এ সময় দেশ ও জাতির শান্তি-সমৃদ্ধি এবং অগ্রগতি কামনা করে বিশেষ মোনাজাত করা হয়। চতুর্থ ড্রিমলাইনার রাজহংস উড়োজাহাজটি ৪৩ হাজার ফুট উচ্চতায় ওয়াই-ফাই পরিষেবা দেবে। যাত্রীরা আকাশ থেকে ইন্টারনেটে বিশ্বের যেকোনো স্থানে বন্ধু ও স্বজনদের সঙ্গে যোগাযোগ করতে পারবেন। ১৪ সেপ্টেম্বর বাংলাদেশ বিমানের বহরে চতুর্থ বোয়িং ৭৮৭-৮ ড্রিমলাইনার যুক্ত হয়েছে। এটি জাতীয় পতাকাবাহী সংস্থাটির বহরে যুক্ত হওয়া ১৬তম উড়োজাহাজ। যুক্তরাষ্ট্রের সিয়াটলের বিমান কারখানা থেকে ওই দিনই বিকেলে সরাসরি হজরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে অবতরণ করে এটি। ওই দিন বিমানের ভারপ্রাপ্ত ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) ক্যাপ্টেন ফারহাত হাসান জামিল ও অন্য উচ্চপদস্থ কর্মকর্তারা জলকামান স্যালুট জানিয়ে বিমানবন্দরে ড্রিমলাইনারটি গ্রহণ করেন। এর আগে গত বছরের আগস্ট ও ডিসেম্বর মাসে প্রথম ও দ্বিতীয় বোয়িং ৭৮৭-৮ ড্রিমলাইনার ‘আকাশবীণা’ ও ‘হংসবলাকা’ ঢাকায় এসে পৌঁছায়। গত জুলাই মাসে তৃতীয় বোয়িং ৭৮৭-৮ ড্রিমলাইনার ‘গাঙচিল’ ঢাকায় অবতরণ করে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ড্রিমলাইনারগুলোর নাম রাখেন। বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইনস ২০০৮ সালে মার্কিন উড়োজাহাজ নির্মাতা প্রতিষ্ঠান বোয়িং কোম্পানির ১০টি নতুন উড়োজাহাজ ক্রয়ের জন্য ২ দশমিক ১ বিলিয়ন মার্কিন ডলারের একটি চুক্তি করে। চুক্তি অনুযায়ী বোয়িং ইতিমধ্যেই চারটি ৭৭৭-৩০০ ইআর ও দুটি ৭৩৭-৮০০ এবং চারটি ড্রিমলাইনার বিমানকে হস্তান্তর করেছে। ২৭১ আসনের ‘রাজহংস’ বোয়িং ৭৮৭-৮-কে অন্যান্য উড়োজাহাজের তুলনায় ২০ শতাংশ জ্বালানিসাশ্রয়ী উড়োজাহাজ হিসেবে তৈরি করা হয়েছে। এটি ঘণ্টায় ৬৫০ মাইল বেগে একটানা ১৬ ঘণ্টা উড়তে সক্ষম।
Long time ago
পরিবেশ ছাড়পত্র ছাড়াই ডিএনসিসির ডাম্পিং স্টেশন, বন্ধের নোটিশ দেওয়ার সুপারিশ সংসদীয় কমিটির

পরিবেশ ছাড়পত্র ছাড়াই ডিএনসিসির ডাম্পিং স্টেশন, বন্ধের নোটিশ দেওয়ার সুপারিশ সংসদীয় কমিটির

রাজধানীর উপকণ্ঠ সাভারের আমিনবাজার বর্জ্য ডাম্পিং স্টেশন বন্ধ করার নোটিশ দেওয়ার সুপারিশ করেছে সংসদীয় কমিটি। এ ছাড়া পরিবেশ দূষণের দায়ে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনকে (ডিএনসিসি) সর্বোচ্চ জরিমানা করার সুপারিশ করা হয়েছে। আজ শনিবার জাতীয় সংসদ ভবনে অনুষ্ঠিত পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন বিষয়ক মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটি এই সুপারিশ করে। বৈঠকে মন্ত্রণালয় জানিয়েছে তারা শিগগিরই এ বিষয়ে ব্যবস্থা নেবে।  সংসদীয় কমিটির বৈঠক সূত্র জানায়, আজকের বৈঠকের আগে গত ৪ এপ্রিলও এই ডাম্পিং স্টেশন নিয়ে আলোচনা হয়। পরিবেশ ছাড়পত্র ছাড়াই চলছে এই ডাম্পিং স্টেশনটি। শুরুতে এই প্রকল্পের জন্য ‘স্থানগত ছাড়পত্র‘ পেয়েছিল অবিভক্ত ঢাকা সিটি করপোরেশন। ‘স্থানগত ছাড়পত্র’ হলো কোনো এলাকায় কাজ করার জন্য পরিবেশন অধিদপ্তর থেকে পাওয়া ছাড়পত্র। এরপর পরিবেশগত ছাড়পত্রের প্রয়োজন হয়। সংসদীয় কমিটির বৈঠকের কার্যপত্র থেকে জানা যায়, গত এপ্রিলে আমিনবাজারের ডাম্পিং স্টেশন নিয়ে আলোচনার পর পরিবেশ অধিদপ্তর ডিএনসিসিকে ৩টি নোটিশ দেয়। কিন্তু এ বিষয়ে সিটি করপোরেশন থেকে কোনো সাড়া পাওয়া যায়নি। পরে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের মেয়র আতিকুল ইসলামের সঙ্গেও পরিবেশ মন্ত্রণালয় কথা বলে। সিটি করপোরেশন জানায় তাদের দেড় দুই বছর সময় লাগবে। এই অবস্থায় সিটি করপোরেশনকে জরিমানা এবং ডাম্পিং স্টেশনটি বন্ধ করে দেওয়ার নোটিশ দেওয়ার সুপারিশ এলো। আজ বৈঠক শেষে সংসদীয় কমিটির সভাপতি সাবের হোসেন চৌধুরী প্রথম আলোকে বলেন, ডাম্পিং স্টেশনটি করার জন্য পরিবেশ ছাড়পত্র নেওয়া হয়নি। এটি বন্যা প্রবণ এলাকায় অবস্থিত। বর্ষায় সব আবর্জনা নদীর পানিতে মিশে ছড়িয়ে পড়ছে। পরিবেশ অধিদপ্তর আগেও এ বিষয়ে সিটি করপোরেশনকে চিঠি দিয়েছে। কিন্তু সাড়া পায়নি। সংসদীয় কমিটি এই ডাম্পিং স্টেশনটি বন্ধ করতে নোটিশ দিতে সেই সঙ্গে পরিবেশ দূষণের দায়ে আইন অনুযায়ী জরিমানা করতে বলেছে। সিটি করপোরেশন বলে তারা বাড়তি সুবিধা পেতে পারে না। আইন সবার জন্য সমান। ২০০৫-২০০৬ অর্থবছরে ৫০ একর জমির ওপর নতুন করে নির্মাণ করা হয় আমিন বাজার বর্জ্য ডাম্পিংয়ের কাজ। ২০০৭ সাল থেকে এতে বর্জ্য ব্যবস্থাপনা শুরু হয়। এই প্ল্যান্টের মেয়াদকাল নির্ধারণ করা হয় ২০১৭ সালের ডিসেম্বর পর্যন্ত। কিন্তু এখনো ওই এলাকায় বর্জ্য ব্যবস্থাপনা চলছে। সাবের হোসেন চৌধুরীর সভাপতিত্বে বৈঠকে কমিটির সদস্য পরিবেশ মন্ত্রী মো. শাহাব উদ্দিন, উপমন্ত্রী হাবিবুর নাহার, মোজাম্মেল হোসেন, দীপংকর তালুকদার, নাজিম উদ্দিন আহমেদ, জাফর আলম, রেজাউল করিম বাবলু এবং খোদেজা নাসরিন আক্তার অংশ নেন।
Long time ago
আফগানিস্তানকে হারাতেই পারছে না বাংলাদেশ

আফগানিস্তানকে হারাতেই পারছে না বাংলাদেশ

ত্রিদেশীয় সিরিজে আফগানিস্তানের কাছে ২৫ রানে হারল বাংলাদেশ। ১৬৫ রানের লক্ষ্যে ব্যাটিংয়ে নেমে ১৩৯ রানে অলআউট হয়েছে স্বাগতিকেরা। চট্টগ্রামে টেস্ট হারের পর এবার টি-টোয়েন্টিতেও আফগানিস্তানের কাছে হারল বাংলাদেশ টি-টোয়েন্টি ছক্কার খেলা। ৬ উইকেটে ১৬৪ রান তোলার পথে গোটা ইনিংসে ১০ ছক্কা মেরেছে আফগানিস্তান। এ রান তাড়া করতে নেমে ১৯তম ওভার পর্যন্তও কোনো ছক্কা মারতে পারেনি বাংলাদেশ। এ তথ্যটুকুই যথেষ্ট ওভারপ্রতি গড়ে আটের বেশি রান তাড়া করতে নেমে কেমন ব্যাট করেছে বাংলাদেশ। শেষ ওভারের প্রথম বলে মোস্তাফিজুর রহমান ইনিংসের প্রথম ছক্কাটা মারার আগেই ম্যাচের ভাগ্য নির্ধারিত হয়ে গেছে! সবচেয়ে বড় দৈর্ঘ্যের সংস্করণে হারের পর এবার সবচেয়ে সংক্ষিপ্ত সংস্করণেও আফগানদের কাছে হারল বাংলাদেশ। ১৯.৪ ওভারে ১৩৯ রানেই গুটিয়েছে বাংলাদেশের ইনিংস। ২৫ রানের এ জয়ে ত্রিদেশীয় সিরিজে পয়েন্ট টেবিলের শীর্ষে উঠল আফগানিস্তান। আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টিতে গত পাঁচ বছরে আফগানদের বিপক্ষে জয়বঞ্চিত রইল বাংলাদেশ। চট্টগ্রামে টেস্ট হারের পর এবার হার টি-টোয়েন্টিতেও। তাড়া করতে নেমে লিটন দাসের সঙ্গে ওপেন করেছেন মুশফিকুর রহিম! তা দেখে ভীষণ অবাক হওয়ার কথা বাংলাদেশের ক্রিকেটপ্রেমীদের। আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টিতে এবারই যে প্রথম ওপেন করলেন মুশফিক। সৌম্য সরকারকে শুরুতে মুজিব উর রহমানের স্পিন থেকে বাঁচাতেই সম্ভবত এ কৌশল অবলম্বন করেছিল বাংলাদেশের টিম ম্যানেজমেন্ট। কিন্তু তাতে কাজ হলো কোথায়? পঞ্চম ওভারে সৌম্য ফিরলেন প্রথম বলেই, শিকারি সেই মুজিব-ই! অবশ্য শুধু সৌম্যর একার আর কতটুকু দায়? তামিম ইকবালের অনুপস্থিতিতে তাঁর নিয়মিত ওপেনিং সতীর্থ লিটন দাস (০) অল্পের জন্য আফগান ইনিংসের পুনরাবৃত্তি করতে পারেননি! আফগানিস্তানের ইনিংসে প্রথম বলেই উইকেট পেয়েছিল বাংলাদেশ। আর বাংলাদেশের ইনিংসে লিটন উইকেট উপহার দিয়েছেন ইনিংসের দ্বিতীয় বলেই। বলা ভালো, মুজিবকে উপহার দিয়েছেন। অন সাইডে খেলতে গিয়ে ক্যাচ দিয়েছেন অফ সাইডে। পরের ওভারে ফারিদ আহমেদকে স্কুপ করতে গিয়ে বোল্ড মুশফিক (৫)। বরাবরের মতোই শুরুতে জেঁকে বসা চাপ কাটিয়ে বেরিয়ে আসতে পারেনি দল। উল্টো পঞ্চম ওভারের মধ্যে সাকিব (১৫) ও সৌম্যকে (০) হারানোয় চাপটা আরও ঘনীভূত হয়। পঞ্চম উইকেটে মাহমুদউল্লাহ-সাব্বির মিলে একটা চেষ্টা চালিয়েছিলেন। কিন্তু তাঁদের ৫৮ বলের জুটিতে খেলা ৫১ বলসংখ্যা সে চাপ খুব একটা আলগা করতে পারেনি। ১৪তম ওভারে নঈবের স্লোয়ার আগেভাগে খেলে ফেলার খেসারত দিয়ে আউট হন মাহমুদউল্লাহ। ৩৯ বলে তাঁর ৪৪ রানের ইনিংসটি আক্ষেপই বাড়িয়েছে। ওই ওভার শেষে ৩৬ বলে ৭১ রান দরকার ছিল বাংলাদেশের। আগের ম্যাচের নায়ক আফিফ হোসেনের ওপর ভরসা রেখেছিলেন অনেকেই। কিন্তু একজন খেলোয়াড় তো আর প্রতিদিন রান করবেন না! তার ওপর পরের ওভারে সাব্বিরও (২৭ বলে ২৪) ফেরায় চোখ রাঙাতে শুরু করে হার। শেষ ৩০ বলে ৬৮ রান দরকার ছিল বাংলাদেশের। হাতে ৪ উইকেট, ব্যাট করছিলেন গত ম্যাচ জেতানোর দুই কারিগর আফিফ ও মোসাদ্দেক। এখান থেকেও অনেকে আশা দেখেছেন। কিন্তু দুই তরুণ পরিস্থিতির দাবি মিটিয়ে রানের চাকা ঘোরাতে পারেননি। ১৮ বলে ৫১ রানের দূরত্বে থাকতে ১৮তম ওভারে আউট হন আফিফ (১৪ বলে ১৬)। শেষ দুই ওভারে ৪৫ রানের দূরত্বে থাকতে আকাশে ক্যাচ তুলে আউট হন অলরাউন্ডার মোহাম্মদ সাইফউদ্দিন। রশিদ খান তুলে নেন তাঁকে। এক বল পর মোসাদ্দেককেও (১০ বলে ১২ রান) তুলে নেন আফগান অধিনায়ক। হার তখন কেবলই সময়ের ব্যাপার। আর দর্শকেরা ছাড়তে শুরু করেছেন গ্যালারি, সম্ভবত মনে বেশ বিস্ময় নিয়েই—বাংলাদেশের জন্য আফগানিস্তান এখন কত কঠিন দল! এ ম্যাচে বাংলাদেশের ব্যাটিং দেখে দর্শকদের বিনোদন নেওয়ার যদি কিছু থাকে তবে সেটি শেষ ওভারে। ৬ বলে ৪০ রানের অনতিক্রম্য দূরত্বে পিছিয়ে ছিল বাংলাদেশ। ফারিদের প্রথম চার বল থেকে দুই চার ও এক ছক্কা আদায় করে নেন মোস্তাফিজ।




Long time ago

Mary
Images: 16
Online now: Yes.
Looking for: Men
Home page: HERE

Long time ago

image

Anon here is living in 3019

Long time ago
‘ছাত্রলীগ মিথ্যা গল্প ফেঁদেছে, আমি চ্যালেঞ্জ দিলাম’

‘ছাত্রলীগ মিথ্যা গল্প ফেঁদেছে, আমি চ্যালেঞ্জ দিলাম’

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ফারজানা ইসলাম বলেছেন, বিশ্ববিদ্যালয়ের উন্নয়ন প্রকল্পের অর্থ ভাগ-বাঁটোয়ারা নিয়ে ছাত্রলীগ তাঁর বিরুদ্ধে মিথ্যা গল্প ফেঁদেছে। এ বিষয়ে তিনি তাদের চ্যালেঞ্জ করেছেন। আর ঘটনা তদন্ত করে দেখার জন্য তিনি বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশন ও আচার্যকে অনুরোধ করবেন বলেও জানান। উপাচার্য বলেন, ‘অর্থ লেনদেনের বিষয়টি বানোয়াট গল্প। টাকা-পয়সা নিয়ে তাদের সঙ্গে আমার কোনো কথা হয়নি। তারা তাদের মতো করে কাজ করে। তারা কার কাছে কমিশন পায় বা পায় না, তা আমি জানি না। এ বিষয়ে তারা আমাকে ইঙ্গিত দিলে আমি বলি, তোমরা টাকা-পয়সা নিয়ে কোনো আলাপ আমার সঙ্গে করবে না। তোমরা যা চাও, তা তোমাদের মতো করো।’ আজ শনিবার দুপুর ১২টার দিকে উপাচার্য তাঁর বাসভবনে সাংবাদিকদের এসব কথা বলেন।সম্প্রতি বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য ফারজানা ইসলাম ও তাঁর পরিবারের সদস্যদের উপস্থিতিতে বিশ্ববিদ্যালয়ের উন্নয়ন প্রকল্পের প্রথম ধাপের ৪৫০ কোটি টাকার মধ্যে ২ কোটি টাকা বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগ ও কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের মধ্যে ভাগাভাগি করে দেওয়া হয়—এমন খবর গণমাধ্যমে প্রকাশিত হয়। এর পর থেকে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যের বিরুদ্ধে আর্থিক লেনদেনের এই অভিযোগ তদন্তসহ তিন দফা দাবিতে আন্দোলন শুরু হয় ক্যাম্পাসে। এর পরিপ্রেক্ষিতে গত মঙ্গলবার সন্ধ্যায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে দেখা করেন উপাচার্য। গত বৃহস্পতিবার আন্দোলনকারীদের সঙ্গে আলোচনায় বসেন তিনি। আলোচনায় আন্দোলনকারীদের দুই দফা দাবি মেনে নিলেও আর্থিক লেনদেনের অভিযোগের বিষয়ে আগামী বুধবার পর্যন্ত সময় নেন। উপাচার্য আজ সাংবাদিকদের বলেন, ‘তাদের (ছাত্রলীগ) মূল উদ্দেশ্য ছিল যে তারা ঠিকাদারের কাছ থেকে কিছু কমিশন নেবে। তারা এ বিষয়ে আমাকে ইঙ্গিত দিয়েছে। কিন্তু আমার কাছে এসে তারা হতাশ হয়েছে। তারা প্রধানমন্ত্রীর কাছে যে খোলা চিঠি লিখেছে, তা সম্পূর্ণ মিথ্যা।’ প্রধানমন্ত্রী বরাবর ছাত্রলীগের সভাপতি রেজওয়ানুল হক চৌধুরী ও সাধারণ সম্পাদক গোলাম রব্বানী যে খোলা চিঠি দিয়েছেন, সে বিষয়ে উপাচার্য বলেন, ‘তারা মিথ্যা গল্প ফেঁদেছে। আমি তাদের প্রতি চ্যালেঞ্জ ছুড়ে দিলাম। এ বিষয়ে আমি তদন্ত করতে বলব বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনকে, মাননীয় আচার্যকে। আমি যাব তাদের কাছে। এতে আমার কোনো সমস্যা নেই।’ ছাত্রলীগ কেন মিথ্যা কথা বলবে—এমন প্রশ্নের জবাবে ফারজানা ইসলাম বলেন, ‘আমি দুর্ভাগ্যক্রমে শেষ তীর ছিলাম। এটা হয়তো আমার দিক থেকেই গেল। তার পটভূমি পত্রিকায় প্রকাশ হয়েছে। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়, ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের পটভূমিতে যেন তার প্রিয় ছাত্রলীগের পচন না ধরে, সে জন্য প্রধানমন্ত্রী তদন্ত শুরু করেছিলেন। কিন্তু শেষমেশ হয়তো আমারটা দিয়ে শেষ হয়ে গেল। তারা (ছাত্রলীগ) এ পটভূমি করেছে এটা থেকে বাঁচতে। তাই ক্যাম্পাসের আন্দোলনের সঙ্গে বিষয়টি জড়িয়ে দিয়েছে।’ বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের আন্দোলনের বিষয়ে উপাচার্য বলেন, ‘ক্যাম্পাসে আন্দোলনের মাধ্যমে কিছু মানুষ আমাকে দুর্নীতিবাজ বানাতে চাচ্ছে। তাই আমি চাই দুর্নীতি যে-ই করুক, তার তদন্ত হোক। যে বা যারা বিশ্ববিদ্যালয়ের সম্মান নষ্ট করেছে, তার তদন্ত হোক। হয়তো আমার দুর্নীতি বের করতে গিয়ে অন্য কিছু বেরিয়ে আসবে।’
Long time ago
চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী, বিএনপির একক

চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী, বিএনপির একক

আসন্ন চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে বিএনপি একক প্রার্থী দিলেও ভোটের মাঠে থাকছে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী। বিদ্রোহী প্রার্থীকে বোঝানোর কাজটি করতে সক্ষম হবেন বলে এখনো আশাবাদী জেলার আওয়ামী লীগের শীর্ষ নেতারা। মনোনয়ন পত্র জমা দেওয়ার শেষ দিন গতকার বৃহস্পতিবারে চেয়ারম্যান পদে মনোনয়ন পত্র জমা দেন আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক অ্যাড. মো. নজরুল ইসলাম, আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী ও সদর উপজেলা পরিষদের সাবেক ভাইস চেয়ারম্যান জিয়াউর রহমান তোতা, বিএনপির মনোনীত প্রার্থী সদর উপজেলা বিএনপির সভাপতি মো. তসিকুল ইসলাম তসি। এ বিষয়ে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী জিয়াউর রহমান তোতা বলেন, জনগণের ইচ্ছার প্রতি শ্রদ্ধা রেখে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছি। তবে জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি (ভারপ্রাপ্ত) ও সাবেক সংসদ সদস্য মু. জিয়াউর রহমান জানান, চেষ্টা করছি এখনো সময় আছে তোতাকে বোঝাতে সক্ষম হব। এদিকে, ভাইস চেয়ারম্যান পদে মনোনয়ন জমা দিয়েছেন ১৬ জন এর মধ্যে ১৩ জনই আওয়ামী লীগের রাজনীতির সঙ্গে সম্পৃক্ত। পুরুষ ভাইস চেয়ারম্যান পদে মনোনয়নপত্র জমা প্রদান করেন, মাওলানা মোহাম্মদ সোহরাব আলী, নাহিদ ইসলাম রাজন, লেলিন প্রমানিক, তোসিকুল আলম, নজরুল ইসলাম, মনির হোসেন বকুল, নজরুল ইসলাম, শাহনেওয়াজ কবির। মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে মনোনয়ন জমা প্রদান করেন, শরিফা খাতুন বেবি, তাসলিমা খাতুন, মাতুয়ারা বেগম, নাসরিন আক্তার, রজনী খাতুন, দিলশাদ তাহমিনা বেগম, শরিফা খাতুন ডেজি, নাজনীন নাহার। চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে গতকাল মনোনয়ন জমা দেন আ’লীগ মনোনীত প্রার্থী অ্যাড. নজরুল ইসলাম (উপরে), নীচে বামে ভাইস চেয়ারম্যন পদে মনোনয়ন জমা দেন নাহিদ ইসলাম রাজন ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে মনোনয়ন জমা দেন নাজনীন 
Long time ago
ফাঁকা চেক দিয়ে পণ্য লুটে নেন তিনি

ফাঁকা চেক দিয়ে পণ্য লুটে নেন তিনি

তিন মাসের জন্য আলিশান অফিস ভাড়া নেন তিনি। চলাচল করেন দামি গাড়িতে। পাঁচ তারকা হোটেল ছাড়া ব্যবসায়িক কোনো সভাতেই বসেন না। নানাজনের সঙ্গে লাখ লাখ টাকার পণ্য কেনার ব্যবসায়িক চুক্তি করেন। আস্থায় নিতে অগ্রিম কিছু টাকাও দিয়ে দেন। ব্যবসায়ী যখন অগাধ বিশ্বাসে সব পণ্য সরবরাহ করেন তখনই শুরু হয় টালবাহানা। টাকা আজ দিচ্ছেন তো কাল, এমন করে ব্যবসায়ীদের ঘোরাতে থাকেন। আর মাস তিনেক পেরোতে না পেরোতেই তিনি লাখ লাখ টাকার পণ্য নিয়ে লাপাত্তা। আর তখন ব্যবসায়ীর হাতে পড়ে থাকে কেবল কিছু ফাঁকা (ডিজঅনার) চেক। গত ২৫ বছরে এমন অনেক প্রতারণা করে ওই ব্যক্তি বহু ব্যবসায়ীর কাছে ফাঁকা চেক দিয়ে নিজে হাতিয়ে নিয়েছেন অন্তত ২৫ কোটি টাকা।  একের পর এক এমন প্রতারণা করা এক ব্যক্তিকে গ্রেপ্তার করেছে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের গোয়েন্দা পূর্ব বিভাগ। তাঁর নাম মো. মশিউর রহমান। জাতীয় পরিচয়পত্র অনুযায়ী তাঁর বাড়ি গোপালগঞ্জের কোটালিপাড়ায়। থাকেন রাজধানীর সেগুনবাগিচা এলাকায়। গোয়েন্দা কর্মকর্তারা বলছেন, প্রতারণা ছাড়াও জাল টাকা ও ডলারের সঙ্গেও এই ব্যক্তি জড়িত। বুধবার সবুজবাগ এলাকা থেকে তাঁকে গ্রেপ্তার করা হয়। এ সময় তাঁর কাছ থেকে ৩ লাখ ৩৬ হাজার টাকার জাল নোট এবং ৬ হাজার মার্কিন ডলার জব্দ করা হয়। ঢাকা মহানগরের বিভিন্ন থানায় তাঁর নামে ১২টি প্রতারণা এবং দশের অধিক চেক জালিয়াতি মামলা রয়েছে। ভুক্তভোগী লোকজনের কাছ থেকে পাওয়া তথ্যানুযায়ী, বিভিন্ন ব্যক্তির কাছ থেকে এই ব্যক্তি অন্তত ২৫ কোটি টাকার পণ্য প্রতারণা করে হাতিয়ে নিয়েছেন।  মশিউর রহমানকে দুদিনের রিমান্ডে এনে জিজ্ঞাসা করছেন গোয়েন্দা কর্মকর্তারা। তাঁকে গ্রেপ্তারের খবর পেয়ে আজ বৃহস্পতিবার মিন্টো রোডের ডিবি কার্যালয়ে আসেন অনেক প্রতারিত ও ভুক্তভোগী ব্যক্তি। তাঁদের কেউ ব্যবসায়িক চুক্তি অনুযায়ী মশিউরকে লাখ লাখ টাকার ইলেকট্রনিক্স পণ্য সরবরাহ করেছিলেন। কেউ চাল, কেউ আলু কেউবা হার্ডওয়ার সামগ্রী সরবরাহ করেছিলেন।  আজম হোসাইন নামের এক ব্যবসায়ী প্রথম আলোকে বলেন, গত বছরের জুন মাসে মশিউরের সঙ্গে একটি ব্যবসায়িক চুক্তি হয়েছিল তাঁদের। তখন তাঁর অফিস ছিল বনানী ৪ নম্বর সড়কে। চুক্তি অনুযায়ী ৪২টি শীতাতপনিয়ন্ত্রণ যন্ত্র (এসি) তাঁকে সরবরাহ করেন। এরপর তাঁরা যখন টাকা চাইতে যান, তখন আজ-কাল করে তাঁদের ঘোরাতে থাকেন। কয়েকটি চেক দেন। কিন্তু ব্যাংক থেকে যখন টাকা তুলতে যান তখন দেখেন অ্যাকাউন্টে কোনো টাকা নেই।  বেঙ্গল গ্রুপের ব্যবস্থাপক (প্রশাসন) দেবাশীষ বড়ুয়া বলেন, বেঙ্গলের লিনেক্স ইলেকট্রনিকস থেকে গত বছর ৫৩ লাখ টাকার জিনিসপত্র কিনেছিলেন মশিউর রহমান। এক মাস পেরিয়ে গেলেও তিনি যখন টাকা দিচ্ছিলেন না, তখন তাঁর গোডাউন থেকে তাঁরা পণ্যগুলো ফেরত নিয়ে আসেন। কিন্তু তত দিনে ৬ লাখ ২৩ হাজার ৭ টাকার পণ্য মশিউর বিক্রি করে দেন। সেই টাকাটা তাঁরা আর পাননি। মো. বিলাল হোসেন নামের আরেক ভুক্তভোগী বলেন, তাঁদের কাছ থেকে ২৫টি এসি কিনেছিলেন মশিউর। চুক্তির পরপরই ২০ শতাংশ টাকা অগ্রিম দিয়ে দেন। তাঁরা যখন সব এসি সরবরাহ করেন, তখন মশিউর ১১ লাখ ৯৬ হাজার টাকার একটি চেক দেন তাঁদের। কিন্তু চেকটির বিপরীতে কোনো ব্যাংকে গিয়ে তাঁরা কোনো টাকা পাননি। ফিরে এসে দেখেন মশিউর নেই, তাঁর কার্যালয়ও বন্ধ। গোয়েন্দা কর্মকর্তারা জানান, মাস তিনেক আগে সেনাবাহিনীর দুজন অবসরপ্রাপ্ত কর্মকর্তা তাঁদের কাছে অভিযোগ নিয়ে আসেন। তাঁদের একজনের কাছে থেকে মশিউর ৬৫ লাখ টাকার চাল নিয়েছিলেন। আর অন্যজনের কাছ থেকে ধার নিয়েছিলেন ৫০ লাখ টাকা। মশিউরের দেওয়া চেক দিয়ে তাঁরা যখন ব্যাংক থেকে টাকা নিতে যান, তখন দেখেন ব্যাংকে টাকা নেই। খিলগাঁও অঞ্চলের অতিরিক্ত উপকমিশনার শাহিদুর রহমান প্রথম আলোকে বলেন, অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে গত তিন মাস ধরে মশিউরের সন্ধান করছিলেন তাঁরা। বুধবার জাল টাকার একটি লেনদেন করার সময় তাঁকে গ্রেপ্তার করতে সক্ষম হন। তিনি বলেন, ২০-২৫ বছর ধরে মশিউর এই কাজ করে আসছেন। এখন পর্যন্ত রাজধানীর উত্তরা, বনানী, নিকুঞ্জ, শান্তিনগর ও পল্টনে বিভিন্ন সময়ে তাঁর কার্যালয় ছিল বলে তাঁরা জানতে পেরেছেন। ভুক্তভোগী লোকজনের কাছ থেকে পাওয়া অভিযোগ, অন্তত ২৫ কোটি টাকার পণ্য মশিউর বিভিন্ন মানুষের কাছ থেকে প্রতারণা করে নিয়েছেন। তবে টাকার অঙ্ক আরও বেশি হওয়ার সম্ভাবনা আছে। শাহিদুর রহমান বলেন, পাঁচ থেকে সাতজনের একটি সংঘবদ্ধ চক্র এই কাজটি করে থাকে। অন্যদের শনাক্ত করার চেষ্টা চলছে।
Long time ago
সাবেক প্রেমিককে সাবেক প্রেমিকার শুভেচ্ছা

সাবেক প্রেমিককে সাবেক প্রেমিকার শুভেচ্ছা

হলিউডের প্রখ্যাত অভিনেতা উইলিয়াম ডেফোর মতে, রবার্ট প্যাটিনসনকে ব্যাটম্যান হিসেবে দারুণ মানাবে। ভ্যারাইটিকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে উইলিয়াম ডেফো বলেছেন, ‘রবার্ট প্যাটিনসনের চিবুক খুব শক্তিশালী আর স্বতন্ত্র। এই চিবুক ব্যাটম্যানের একটা গুরুত্বপূর্ণ অংশ। আপনি কি সাধারণ চিবুকের কাউকে ব্যাটম্যানের চরিত্রে কল্পনা করতে পারেন? আমার বিশ্বাস, পারেন না।’ ২০০৫ সালে ‘ব্যাটম্যান বিগিনস’ ছবিতে অভিনয় করেছেন ক্রিশ্চিয়ান বেল। এবার টরন্টো আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উত্‍সবে এসে রবার্ট প্যাটিনসন প্রসঙ্গে ভ্যারাইটিকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে তিনি বললেন, ‘দারুণ পছন্দ! রবার্ট প্যাটিনসন এমনিতেই খুব ইন্টারেস্টিং। আমি নিশ্চিত, তিনি এই চরিত্রে খুব ভালো কিছু করবেন।’‘টোয়াইলাইট’ ছবিতে অ্যাডওয়ার্ড কলেনের চরিত্রে অভিনয় করে রবার্ট প্যাটিনসন প্রমাণ করেছেন, দুর্দান্ত গতিতে উড়ে উড়ে গাছে চড়ে আর শরীর দিয়ে রোদ খায়, সেই ভ্যাম্পায়ারও হতে পারে আদর্শ প্রেমিক পুরুষ। এরই মধ্যে জানা হয়ে গেছে, এবার ব্যাটম্যানের পরবর্তী ছবিতে সেই রবার্ট প্যাটিনসন হয়ে উঠবেন ‘ব্রুস ওয়েন’। ম্যাট রিভসের পরিচালনায় ‘ব্যাটম্যান’ সিরিজের পরবর্তী ছবি ‘কেপড ক্রুসেডর’-এ ‘ব্যাটম্যান’ চরিত্রে দেখা যাবে এই ‘টোয়াইলাইট’ তারকাকে। ম্যাট রিভস নিজেই এই ছবির চিত্রনাট্য লিখছেন। এ বছর শেষে শুরু হবে শুটিং। রবার্ট প্যাটিনসনের আগে সুপারহিরো ব্যাটম্যান অ্যাডাম ওয়েস্ট, মাইকেল কিটন, ভল কিলমার, জর্জ ক্লুনি, ক্রিশ্চিয়ান বেল ও বেন অ্যাফ্লেকের শরীরে জীবন্ত হয়েছে। এদিকে হলিউড তারকা ক্রিস্টেন স্টুয়ার্ট তাঁর সাবেক প্রেমিক রবার্ট প্যাটিনসনকে নিয়ে উচ্ছ্বসিত প্রশংসা করেছেন। এবার টরন্টো চলচ্চিত্র উৎসবে নিজের নতুন ছবি ‘সেবার্গ’ নিয়ে গিয়েছিলেন তিনি। সেখানে ভ্যারাইটি থেকে ক্রিস্টেন স্টুয়ার্টের কাছে নতুন ‘ব্যাটম্যান’ নিয়ে জানতে চাওয়া হয়। মুহূর্তেই সাবেক প্রেমিকের সঙ্গে তাঁর চার বছরের প্রেম ভেঙে যাওয়ার পর সেই কষ্টের দিনগুলোর কথা ভুলে যান ক্রিস্টেন স্টুয়ার্ট। শুভেচ্ছা জানান রবার্ট প্যাটিনসনকে। বললেন, ‘নতুন ব্যাটম্যান হিসেবে যাকে পছন্দ করা হয়েছে, তা একেবারেই সঠিক হয়েছে। দুর্দান্ত সিদ্ধান্ত! আমি তো বলব, ব্যাটম্যান চরিত্রটি করার জন্য ও একেবারে যথাযথ। আমি ভীষণ খুশি হয়েছি। ওর জন্য অনেক অনেক শুভকামনা।’ স্টেফানি মেয়ারের ফ্যান্টাসি উপন্যাস ‘টোয়াইলাইট’ অবলম্বনে ‘টোয়াইলাইট’ সিরিজের ছবিগুলোতে অভিনয় করে রাতারাতি দারুণ জনপ্রিয় হন রবার্ট প্যাটিনসন ও কারস্টেন স্টুয়ার্ট। এই ছবির কাজের ফাঁকেই তাঁদের মাঝে তৈরি হয় কঠিন প্রেম।  সবকিছু ভালোভাবেই চলছিল। হঠাৎ নির্মাতা রুপার্ট স্যান্ডার্সের সঙ্গে ক্রিস্টেন স্টুয়ার্টের ঘনিষ্ঠতার খবর আর ছবি ফাঁস হওয়ায় মুষড়ে পড়েন রবার্ট প্যাটিনসন। ওই সময় হলিউডে এক বাড়িতেই থাকতেন তাঁরা। কিন্তু প্রেমিকার কাছ থেকে অপ্রত্যাশিতভাবে প্রতারিত হওয়ার পর রবার্ট প্যাটিনসন সেই বাড়ি থেকে চলে যান। এর পর প্রকাশ্যে নিজের ভুল স্বীকার করেন এবং ক্ষমা চান ক্রিস্টেন স্টুয়ার্ট। শেষ পর্যন্ত ফিরে পান প্রেমিক রবার্ট প্যাটিনসনকে। কিন্তু একদিন ক্রিস্টেন স্টুয়ার্টের ফোনে ভেসে ওঠে রুপার্ট স্যান্ডার্সের পাঠানো বার্তা দেখার সঙ্গে সঙ্গে চার বছরের সম্পর্ক ভেঙে দেওয়ার চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেন ‘টোয়াইলাইট’ তারকা রবার্ট প্যাটিনসন।
Long time ago
ইংরেজ ক্যাপ্টেন কক্স সাহেবের বাংলো

ইংরেজ ক্যাপ্টেন কক্স সাহেবের বাংলো

আপনি কি ফতেখাঁরকুল ইউনিয়নের অফিসেরচর গ্রামে যাবেন? তাহলে কক্সবাজারের রামু উপজেলার চৌমুহনী স্টেশন থেকে দক্ষিণ দিকে দুই কিলোমিটার পথ পার হলেই সেই গ্রাম পেয়ে যাবেন। কেউ যদি জানতে চায়, তাহলে বলবেন, টিনের একটি বাংলোবাড়িতে যেতে চান। যারা জানে না, তাদের কাছে খোলাসা করে বলতে পারেন, বাড়িটি ইংরেজ ক্যাপ্টেন ‘হিরাম কক্স’-এর বাংলোবাড়ি। তারপর বেশ রহস্যময় ভঙ্গিতে ফিসফিস করে বলতে পারেন, ‘বাড়িটির বয়স এখন ২২০ বছর।’ হ্যাঁ, আমরা সেই হিরাম কক্সের কথাই বলছি, যাঁর নামে এখন এই কক্সবাজার জেলা। ১৭৮৪ সালের দিকে আরাকান দখল করে নিয়েছিলেন বার্মার রাজা বোধাপায়া। রাজার আক্রমণ থেকে বাঁচতে প্রায় ১৩ হাজার আরাকানি এদিকে চলে আসে, আশ্রয় নেয় পালংকীতে। বলে রাখি, কক্সবাজারের প্রাচীন নাম কিন্তু পালংকী। সমুদ্র ও জঙ্গলঘেরা পালংকীতে আশ্রিত লোকজনকে পুনর্বাসনের জন্য ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানি ক্যাপ্টেন হিরাম কক্সকে সেখানে নিয়োগ দিয়েছিল। হিরাম কক্স পালংকী এলাকায় প্রতিষ্ঠা করেন একটি বাজার। প্রথম প্রথম এ বাজার ‘কক্স সাহেবের বাজার’ নামে পরিচিত ছিল। পর্যায়ক্রমে ‘কক্স-বাজার’ এবং ‘কক্সবাজার’ নামের উৎপত্তি ঘটে। জায়গাটি ‘প্যানোয়া’ নামেও পরিচিত। ‘প্যানোয়া’ শব্দের অর্থ ‘হলুদ ফুল’। তখন কক্সবাজার হলুদ ফুলের রাজ্য ছিল। হিরাম কক্স তো দায়িত্ব নিয়েছিলেন শরণার্থী পুনর্বাসনের। কিন্তু তাঁকে তো রাত যাপন করতে হবে, করতে হবে দাপ্তরিক কাজ! এ জন্যই রামুতে নির্মিত হয় এই বাংলোবাড়ি। ১৭৯৯ সালে বাংলোবাড়িতে ম্যালেরিয়ায় আক্রান্ত হয়ে ক্যাপ্টেন কক্সের মৃত্যু হয়। তাঁর মরদেহ নেওয়ার জন্য চকরিয়ার মেধাকচ্ছপিয়া এলাকার বড়খালে জাহাজ নিয়ে এসেছিলেন কক্স সাহেবের স্ত্রী ম্যাডাম কক্স পিয়ার। ‘ম্যাডাম কক্স পিয়ার’ লোকমুখে হয়ে যায় ‘মেধাকচ্ছপিয়া’। এখন মেধাকচ্ছপিয়া দেশের অন্যতম জাতীয় উদ্যান। কক্সবাজার শহর থেকে রামুর ক্যাপ্টেন হিরাম কক্সের বাংলোবাড়ির দূরত্ব প্রায় ২৫ কিলোমিটার। এখানে পেয়ে যাবেন ৫৫ বছর বয়সী বদিউজ্জামানকে। ৩০ বছর ধরে তিনি এই বাংলো পাহারা দিচ্ছেন। তাঁর সঙ্গে যখন বাংলোর চারধারে বেড়াতে বের হবেন, তখন বিস্মিত হবেন জেনে যে এই বাড়িই ২২০ বছর আগে তৈরি ক্যাপ্টেন হিরাম কক্সের বাংলোবাড়ি, তা অনেকেই জানে না। এবার নিবিড়ভাবে লক্ষ করলে দেখবেন, এই বাড়ির সঙ্গে যে এ রকম ঐতিহাসিক ঘটনার সংযোগ আছে, সেটা মনে করিয়ে দেওয়ার জন্য কোনো স্মৃতিফলক নেই। বাংলোটি ‘জেলা পরিষদ বাংলো’ নামে অধিক পরিচিত। দুই ঘরের এই বাংলোতে আছে ব্রিটিশ আমলের একটি খাট, চেয়ার-টেবিল। এই বাংলোয় কেউ রাত যাপন করতে চাইলে সরকারি কর্মকর্তাদের জন্য প্রতি রাতের জন্য ২০০ টাকা, পর্যটকদের জন্য ৪০০ টাকা দিতে হয়। বেসরকারি নাগরিক সংগঠন ‘সিভিল সোসাইটিজ ফোরাম-কক্সবাজার’–এর সভাপতি ফজলুল কাদের চৌধুরীর সঙ্গে যদি দেখা হয় আপনার, দেখবেন তিনি দীর্ঘশ্বাস ফেলে বলছেন, ‘২২০ বছরের পুরোনো ঐতিহাসিক বাংলোটি অযত্ন–অবহেলায় পড়ে আছে। বাংলোর ছাউনি পরিবর্তন ছাড়া এ পর্যন্ত ঘরের সংস্কার হয়নি। টাঙানো নেই হিরাম কক্সকে নিয়ে কোনো সাইনবোর্ড কিংবা স্মৃতিফলক। বাংলোটি ‘হিরাম কক্স–এর বাংলোবাড়ি’ হিসেবে খ্যাত হলে রামুর পর্যটনে যোগ হবে নতুন মাত্রা।’ কথাটা আপনারও ঠিক বলে মনে হবে।
Long time ago
বাবা এরশাদের আসনে জাপার প্রার্থী ছেলে সাদ

বাবা এরশাদের আসনে জাপার প্রার্থী ছেলে সাদ

বাবা এইচ এম এরশাদের আসন রংপুর–৩–এ জাতীয় পার্টির মনোনয়ন পেলেন ছেলে রাহগীর আল মাহি সাদ এরশাদ। জাতীয় পার্টির মহাসচিব মসিউর রহমান রাঙ্গা আজ রোববার এ ঘোষণা দেন। জাতীয় পার্টির প্রতিষ্ঠাতা এইচ এম এরশাদ মারা যান গত ১৪ জুলাই। নির্বাচন কমিশনের ঘোষিত তফসিল অনুযায়ী, এরশাদের মৃত্যুতে শূন্য এ আসনে ভোট হবে আগামী ৫ অক্টোবর। এ আসনে ইতিমধ্যে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ ও বিএনপির নেতৃত্বাধীন ২০–দলীয় জোট প্রার্থীর নাম ঘোষণা করেছে। আওয়ামী লীগ গতকাল শনিবার এ আসনে রেজাউল করিমকে মনোনয়ন দেয়। রেজাউল করিম রংপুর জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক। রংপুর-৩ আসনের উপনির্বাচনে অংশ নিচ্ছে বিএনপি। তবে এই আসনে নিজ দলের কোনো প্রার্থীকে মনোনয়ন দিচ্ছে না দলটি। বিএনপির নেতৃত্বাধীন ২০-দলীয় জোটের শরিক পিপলস পার্টির রিটা রহমানকে সমর্থন দিচ্ছে তারা। রিটা বিএনপির প্রতীক ‘ধানের শীষ’ নিয়ে লড়বেন। আজ বিএনপির জ্যেষ্ঠ যুগ্ম সম্পাদক রুহুল কবির রিজভী এ ঘোষণা দেন। জাতীয় পার্টির দুর্গ হিসেবে পরিচিতি রংপুর–৩ আসনে জাতীয় পার্টির প্রার্থী কে হবেন, তা নিয়ে দলটির মধ্যে চাপান–উতোর শুরু হয়। এরশাদপুত্র রাহগীর আল মাহি সাদ এরশাদসহ এ আসনে পাঁচজন দলীয় মনোয়ন চান। বাকি মনোনয়নপ্রত্যাশীরা ছিলেন এরশাদের ভাগনি (মেরিনা রহমানের মেয়ে) মেহেজেবুন নেছা টুম্পা, রংপুর জেলা জাতীয় পার্টির সাধারণ সম্পাদক এস এম ফখর-উজ-জামান ও রংপুর মহানগর জাতীয় পার্টির সাধারণ সম্পাদক এস এম ইয়াসির, জেলা জাতীয় পার্টির যুগ্ম সম্পাদক আবদুর রাজ্জাক। রংপুর-৩ (সদর) আসনে উপনির্বাচনে মনোনয়ন নিয়ে জাতীয় পার্টিতে গৃহদাহ শুরু হয়। এরশাদপুত্র সাদকে মনোনয়ন না দেওয়ার দাবিতে এরশাদের ভাতিজা আসিফ শাহরিয়ারের নেতৃত্বে গত মঙ্গলবার মিছিল হয় নগরে। এর আগের রাতে দুটি এলাকায় সাদ এরশাদের কুশপুত্তলিকা দাহ করা হয়েছে। আবার সাদ এরশাদকে মনোনয়ন দিলে তাঁর পক্ষে কাজ না করার ঘোষণা দেন রংপুর সিটি করপোরেশনের মেয়র ও মহানগর জাতীয় পার্টির সভাপতি মোস্তাফিজার রহমান।  রংপুর-৩ (সদর) আসনের উপনির্বাচনে জাতীয় পার্টির প্রার্থী মনোনয়ন নিয়ে এমন পরিস্থিতির মধ্যে জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান পদ ও সংসদে বিরোধী দলীয় নেতার পদ নিয়ে এরশাদের ছোট ভাই ও জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান জি এম কাদেরের সঙ্গে সাদের মা রওশন এরশাদের দ্বন্দ্ব শুরু হয়। একপর্যায়ে রওশনপন্থীরা কাদেরকে বাদ দিয়ে রওশনকে দলের চেয়ারম্যান ঘোষণা করেন। গত সপ্তাহজুড়ে দলের পাল্টাপাল্টা নানা কর্মসূচি চলে। তবে শেষতক গতকাল রাতে রওশন ও কাদেরপন্থী নেতারা একত্র হয়ে একটা সুরাহা করেন। সেই সমাধান সূত্র হলো, জি এম কাদের দলের চেয়ারম্যান থাকবেন আর রওশন এরশাদ হবেন বিরোধীদলীয় নেতা। জাতীয় পার্টির মহাসচিব মসিউর রহমান রাঙ্গা আজই এ ঘোষণা দেন। এরপরই তিনি রংপুর–৩ আসনে দলের প্রার্থীর নাম ঘোষণা করেন। জাতীয় পার্টির কেন্দ্রীয় নেতা ও সাংসদ সৈয়দ আবু হোসেন বাবলা আজ প্রথম আলোকে বলেন, ‘দলের চেয়ারম্যান জি এম কাদেরের নেতৃত্বাধীন দলীয় কমিটি সাদ এরশাদকে দলীয় মনোনয়ন দিয়েছে। সাদ এরশাদই রংপুর–৩ আসনে জাতীয় পার্টির প্রার্থী।’
Long time ago
Your text here ...

Lorem ipsum dolor sit amet, consectetur adipiscing elit, sed do eiusmod tempor incididunt ut labore et dolore magna aliqua. Ut enim ad minim veniam, quis nostrud exercitation ullamco laboris nisi ut aliquip ex ea commodo consequat. Duis aute irure dolor in reprehenderit in voluptate velit esse cillum dolore eu fugiat nulla pariatur. Excepteur sint occaecat cupidatat non proident, sunt in culpa qui officia deserunt mollit anim id est laborum.

Md. Harun A r Rashid

RASHID
Audio / video call

RANIHATI

https://awameleuge.blogspot.com/

07/22/2020 00:10
Go up